মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ২৭, ২০২২
spot_img
হোমসাক্ষাতকারবীমা দিবস এই শিল্পের জন্য বড় অর্জন

বীমা দিবস এই শিল্পের জন্য বড় অর্জন


এমএম মনিরুল আলম
এমডি, বেঙ্গল ইসলামী লাইফ ইন্স্যুরেন্স


বীমা দিবস বীমা শিল্পের জন্য বড় একটি অর্জন। সরকারকে এর আগেও সাধুবাদ জানিয়েছি আবার জানাচ্ছি। কারণ এই বীমা দিবসের কারণে আমাদের শিল্পে মানুষের একটি আস্থার জায়গা তৈরি হবে। বীমা দিবসকে সরকার প্রথম শ্রেণীর জাতীয় দিবস হিসেবে ঘোষনা করেছে এ কারণে প্রতিবারই প্রধানমন্ত্রী এই অনুষ্ঠানে আসেন। তিনি যখন তার বক্তব্যে উল্লেখ করেন যে তিনি বীমা পরিবারের সদস্য এটা আমাদেরকে অনুপ্রাণিত করে। প্রধানমন্ত্রীর এই বক্তব্যটি ফেসবুক ও ইউটিউবে ভাইরাল হয়ে আছে। অনেক সময় আমাদের ট্রেনিংয়েও আমরা এই ভিডিও ক্লিপসটাকে ব্যবহার করি নতুন প্রজন্মকে এই শিল্পের সাথে যুক্ত হওয়ার জন্য।
বীমা দিবস একটি সরকারি প্রোগ্রাম। আইডিআরএ থেকে যে দিক নির্দেশনা এসেছে সেগুলো পালন করা। র‌্যালী করা, যার যার অফিস আলোকসজ্জা করা, আমাদের ব্যানার ফেস্টুনগগুলোকে রাখা। শুধু মাত্র প্রধান অফিস নয়, আমাদের বিভিন্ন অঞ্চলে শাখা অফিসগুলো আছে সেগুলোতেও করা হবে। এই দিবসে ঢাকার বাইরেও আমাদের কর্মীরা খুবই উজ্জীবিত হয়। তারা আগ্রহ নিয়ে র‌্যালী করে। সারাদিন ব্যাপী বীমার ওপরে আলাপ আলোচনা হয়। মিডিয়াও কাভার করে। মানুষের মধ্যে পজেটিভ ভাবনা তৈরি হয়। দিবসটিকে সর্বদিক থেকে সফল করার জন্য বীমা কোম্পানী,নিয়ন্ত্রক সংস্থা, অর্থ মন্ত্রনালয়, সরকারি অন্যান্য সংস্থাগুলো সবাই সহযোগিতা করছেন। আশা করি দিবসটি খুব সফল ভাবে পালিত হবে।
বীমাখাতের উন্নয়নে অনেক জায়গা আছে। যেভাবে আমাদের অর্থনীতির সূচকের উন্নতি হয়েছে আমাদের বীমা সূচকের সেভাবে উন্নতি হয়নি। মানুষের বীমার প্রয়োজন আছে কিন্তু হয়তো উপলদ্ধি করানোর মতো জনবল নেই। দক্ষ জনবল সেভাবে তৈরি হয়নি। আমাদের এই খাতে দক্ষ জনবল তৈরির জন্য আমি মনে করি সরকারের আরো বাজেট থাকা উচিত। কারণ শুধুমাত্র বীমা কোম্পানীর পক্ষে ট্রেইন আপ করা সম্ভব নয়। উন্নত বিশ্বে জাতীয় ভাবে ওদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। তারা ইন্স্যুরেন্স নিয়ে পড়াশুনা করতে পারে। যারা এই পেশার সাথে সম্পৃক্ত হতে চায় তাদের পেশাগত জ্ঞান দরকার। আমি মনে করি যে, হিউম্যান রিসোর্স ডেভলপমেন্ট যেমন সরকারের প্রোগ্রাম আছে, ঠিক বীমা সেক্টরের জন্য হিউম্যান রিসোর্স ডেভলপমেন্ট দরকার। এটা খুবই টেকনিক্যাল জব। বিশ্ববিদ্যালয় থেকে গ্রাজুয়েশন করে এসে এই খাতে অবদান রাখা খুবই কঠিন। এখানে অনেক টেকনিক্যাল নলেজ লাগে। সেক্ষেত্রে বীমা শিক্ষাখাতে সরকারের আরেকটু নজর দেয়া প্রয়োজন।
দক্ষ জনবল ছাড়া কোনো প্রতিষ্ঠান চালানো যায় না। এটা শুধু আমরা না, সরকার, আমাদের পরিচালনা পর্ষদ সবাই উপলদ্ধি করেছি। এটাকে লক্ষ্য রেখে যদিও সরকার আমাদেরকে বলেছে যে, বীমা কর্মীকে নিয়োগ দেয়ার আগে ট্রেনিং দেয়ার জন্য। এটা খুবই অপ্রতুল। এটাকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দেয়ার জন্য আমাদের যত রিসোর্স আছে ব্যবহার করছি। আপনারা পত্রপত্রিকায় দেখবেন যে, আমরা তিনদিন চারদিন ব্যাপী রেসিডেন্সিয়াল প্রোগ্রাম করছি। এতে আমাদের জ্ঞানের পরিধি বাড়ছে এবং পেশাগত দক্ষতাও বৃদ্ধি পাচ্ছে।

আরো দেখুন

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত