ওরাল আলসার বা মুখে ঘা হলে করণীয় কি? | স্বাস্থ্য | Aporup Bangla | বাংলার প্রতিধ্বনি
ঢাকা | রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১ আশ্বিন ১৪২৮
স্বাস্থ্য

ওরাল আলসার বা মুখে ঘা হলে করণীয় কি?

ডাঃ রিফাত রহমান

প্রকাশিত: ২ মার্চ ২০২১ ১৭:২৪ আপডেট: ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ ১৪:৫৭

ডাঃ রিফাত রহমান | প্রকাশিত: ২ মার্চ ২০২১ ১৭:২৪


ওরাল আলসার বা মুখে ঘা বলতে সাধারণত মুখ গহ্বরে বেদনাদায়ক ক্ষত যা শারীরিক বিভিন্ন কারণে দেখা দিতে পারে। সবচেয়ে বেশি দেখা যাওয়া ওরাল আলসারের মধ্যে একটি হলো অ্যাপথাস আলসার, আর অন্যটি কোল্ড সোর (জ্বর ঠোসা) যা হারপিস সিমপ্লেক্স ভাইরাস দিয়ে হয়ে থাকে।

ওরাল আলসার বা মুখে ঘা বলতে সাধারণত মুখ গহ্বরে বেদনাদায়ক ক্ষত যা শারীরিক বিভিন্ন কারণে দেখা দিতে পারে। সবচেয়ে বেশি দেখা যাওয়া ওরাল আলসারের মধ্যে একটি হলো অ্যাপথাস আলসার, আর অন্যটি কোল্ড সোর (জ্বর ঠোসা) যা হারপিস সিমপ্লেক্স ভাইরাস দিয়ে হয়ে থাকে। আলসার যখন তীব্র বেদনাদায়ক হয়, তখন অনেক সময় ভুলবশত দাঁতের ব্যথা বলে মনে হয়।

ওরাল আলসারের কারণ?

মানসিক চাপ, হরমোনের পরিবর্তন, মাসিকের সমস্যা, খাদ্যজনিত এলার্জি, ক্ষুদ্রান্ত্রের রোগ, ভিটামিন বি ১২, আয়রন বা ফলিক এসিডের ঘাটতির কারনে মুখে অ্যাপথাস আলসার দেখা দিতে পারে। কিছু কিছু ঔষুধের পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া, ব্যাকটেরিয়া ,ভাইরাস সংক্রমণ বা ফাঙ্গাল সংক্রমণ, রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থার ত্রুটিজনিত কারণ, কেমোথেরাপি এবং এইচআইভি সংক্রমণ রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থাকে অনেক কমিয়ে দেয় যার কারণে মুখে আলসার দেখা দিতে পারে। দাঁতের কোনো অংশ যদি ধারালো থাকে তাহলে সেখান থেকেও ট্রমা বা আঘাতজনিত ওরাল আলসার হতে পারে। কিছু দীর্ঘস্থায়ী রোগ যেমন ওরাল লাইকেন প্ল্যানাস, অটোইমিউন ডিজিজ ও মুখে ক্যান্সার হলেও ওরাল আলসার বা মুখে ঘা দেখা দিতে পারে।


চিকিৎসা
ওরাল আলসারের ক্ষেত্রে রোগের কারণ অনুসন্ধান করে চিকিৎসা প্রদান করতে হবে। পর্যাপ্ত পরিমাণে ঘুম এবং মানসিক চাপ কমানো গুরুত্বপূর্ণ। রোগীর খাদ্যাভ্যাসে পরিবর্তন আনতে হবে। দীর্ঘ দিন সিগারেট, পান সুপারি, জর্দার মিশ্রণ, মদ্য পান করার ফলে মুখে ক্যান্সার হতে পারে। যদি ৩ সপ্তাহের বেশি মুখের ঘা স্থায়ী হয় তবে অবিলম্বে একজন দন্ত চিকিৎসক সাথে পরামর্শ করা উচিত। কিছু ক্ষেত্রে রোগ নির্ণয় করতে বায়োপসি ও রক্ত পরীক্ষা করতে প্রয়োজন হতে পারে। যদি ধারালো দাঁত থেকে আলসার হয়ে থাকে তাহলে যত দ্রুত সম্ভব দাঁত ট্রিমিং করে নিতে হবে। রোগীর সার্বিক শারীরিক অবস্থা বিবেচনা করে চিকিৎসা প্রদান করা খুবই জরুরি। এই রোগের সঠিক কারন এবং চিকিত্সার জন্য ওরাল মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করা উচিত।


ডাঃ রিফাত রহমান
বিডিএস, এমএসসি ওরাল মেডিসিন (থাইল্যান্ড)
ওরাল মেডিসিন বিশেষজ্ঞ
ইব্রাহিম মেডিকেল কলেজ (ডেন্টাল ইউনিট), বারডেম হাসপাতাল

পরামর্শর জন্য ঠিকানা:
নেক্সটডেন্ট, লিলিরিন টাওয়ার (ধানমন্ডি সীমান্ত স্কয়ারের পাশের বিল্ডিং),
লেভেল ৭, রোড-২, ধানমন্ডি, ঢাকা।
ফোন নম্বর: ০১৭০৭০০৫৭৫৬, ০১৭২০০৬৬৬৬৬




আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


Top