Walton

আইসিইউ শয্যা বাড়ল আড়াইগুণ

অপরূপবাংলা ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৬ এপ্রিল ২০২১ ১৮:২১ আপডেট: ১৭ মে ২০২১ ২২:৪২

অপরূপবাংলা ডেস্ক | প্রকাশিত: ১৬ এপ্রিল ২০২১ ১৮:২১

UCBL

ফাইল ফটো

বাংলাদেশে করোনাভাইরাসে সংক্রমণ পরিস্থিতি অবনতি হচ্ছে। প্রতিদিনই আক্রান্তের পাশাপাশি মৃত্যুর রেকর্ডও হচ্ছে। এ অবস্থায় হাসপাতালগুলোতে যখন আইসিইউ শয্যার জন্য তীব্র হাহাকার, তখন স্বাস্থ্য অধিদফতরের বিজ্ঞপ্তিতে আইসিইউর সঙ্গে হাই ফ্লো নাজাল ক্যানোলা যুক্ত করে ২৪ ঘণ্টার ব্যবধানে আইসিইউ শয্যা আড়াইগুণ দেখানো হয়েছে। যদিও আক্রান্তদের স্বজনরা বলছেন, ঢাকায় করোনা আক্রান্ত কোনো রোগীর জন্য প্রয়োজন হলেই একটি আইসিইউ শয্যা পাওয়া কঠিন ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের তথ্য অনুযায়ী, বুধবার (১৪ এপ্রিল) রাজধানীর ১০টি সরকারি ও ১৭টি বেসরকারি হাসপাতালে (করোনার জন্য নির্ধারিত বা করোনা ইউনিট রয়েছে) ৪৪৫টি আইসিইউ শয্যার মধ্যে ৪৩৭টিতেই রোগী ভর্তি ছিল। কিন্তু বৃহস্পতিবার (১৫ এপ্রিল) স্বাস্থ্য অধিদফতরের বিজ্ঞপ্তির ধরনে কিছুটা পরিবর্তন আনা হয়। সেখানে আইসিইউ শয্যার পাশাপাশি হাই ফ্লো নাজাল ক্যানোলা সংযুক্ত শয্যাকেও আইসিইউর সমতুল্য ধরে একত্রে দেখানো হয়েছে। কতটি আইসিইউ ফাঁকা রয়েছে, সেটি বৃহস্পতিবার আলাদা করে দেখানো হয়নি। তবে আইসিইউর সমতুল্য হিসেবে পূর্বের তুলনায় প্রায় আড়াইগুণ বেশি শয্যা দেখানো হয়েছে।

বৃহস্পতিবার করোনা বিষয়ক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, রাজধানীতে সরকারি-বেসরকারি মিলিয়ে ৪১টি হাসপাতালে আইসিইউ সমতুল্যসহ মোট আইসিইউ শয্যা সংখ্যা রয়েছে এক হাজার ২৪৩টি। আগের দিনের (১৪ এপ্রিল) বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ঢাকায় ৩৯টি সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে ৪৯৯টি আইসিইউ শয্যার মধ্যে ৪৮৭টিতে রোগী ভর্তি আছে। সরকারি পাঁচটি ও বেসরকারি হাসপাতালে সাতটিসহ মোট আইসিইউ শয্যা খালি ছিল ১২টি।

এ বিষয়ে স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা ঢাকা পোস্টকে বলেন, গতকালের (বৃহস্পতিবার) বিজ্ঞপ্তিতে আইসিইউর সংখ্যাটা বেড়েছে। হাই ফ্লো নাজাল ক্যানোলা যুক্ত শয্যাকেও আইসিইউ শয্যা হিসেবে দেখানো হয়েছে। আইসিইউর একটি প্রধান সাপোর্ট হলো অক্সিজেন দেওয়া। যেহেতু হাই ফ্লো নাজাল ক্যানোলা দিয়েই আইসিইউর মতো সাপোর্ট দেওয়া যাচ্ছে, এজন্য আইসিইউর পাশাপাশি এগুলোকেও আইসিইউ শয্যা সংখ্যা হিসেবে গণনা করা হয়েছে।

হাই ফ্লো নাজাল ক্যানোলা প্রকৃত অর্থে আইসিইউ কি না বা এতদিন কেন দেখানো হয়নি জানতে চাইলে তিনি বলেন, চিকিৎসা পদ্ধতি বা ধারণা প্রতিনিয়ত পরিবর্তন হচ্ছে। এটার অনেক পরিবর্তন-পরিবর্ধন হচ্ছে। আগে আইসিইউ মানে একেবারে আর্টিফিশিয়াল ভ্যান্টিলেশন দিয়ে যেটা দেওয়া হয়, সেভাবে বলা হতো। এখন যেহেতু রোগীর শুধু অক্সিজেন ক্রাইসিসটাই অনেক বেশি এবং হাই ফ্লো নাজাল ক্যানোলা দিয়েই তাকে সাপোর্ট দেওয়া যাচ্ছে। সেজন্য এটাকেও আইসিইউ হিসেবেই ধরে নেওয়া হয়েছে।

করোনায় আক্রান্ত জটিল রোগীদের জন্য হাসপাতালগুলোতে পর্যাপ্ত আইসিইউ এবং কৃত্রিম শ্বাসপ্রশ্বাস দেওয়ার সুবিধা বা ভেন্টিলেশন থাকা জরুরি। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে, আক্রান্তদের ৪০ শতাংশের উপসর্গ থাকে মৃদু। মাঝারি মাত্রার উপসর্গ থাকে ৪০ শতাংশের। তীব্র উপসর্গ থাকে ১৫ শতাংশের। আর জটিল পরিস্থিতি দেখা যায় বাকি ৫ শতাংশের ক্ষেত্রে। তীব্র উপসর্গ ও জটিল রোগীদের প্রায় সবার এবং মাঝারি উপসর্গ রয়েছে এমন অনেক রোগীকে হাসপাতালে ভর্তি হতে হয়। জটিল প্রায় সব রোগীর আইসিইউ শয্যার পাশাপাশি ভেন্টিলেশন দরকার হয়।

উচ্চবিত্তদের জন্য আইসিইউ শয্যা পাওয়া যতটা না কষ্টকর, সাধারণ মানুষ বা মধ্যবিত্তদের জন্য সরকারি হাসপাতালের আইসিইউ শয্যা সঙ্কট আরও প্রকট বলে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে।




আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


Top