Walton

সম্পাদকীয়, অপসম্পাদকীয় এবং সমাজমাধ্যম

তায়েব মিল্লাত হোসেন

প্রকাশিত: ৩ মে ২০২১ ২২:১৫ আপডেট: ১৭ মে ২০২১ ২২:৫৫

তায়েব মিল্লাত হোসেন | প্রকাশিত: ৩ মে ২০২১ ২২:১৫

UCBL

লেখক

একদা কথকের জায়গা দখলে নিয়েছে কাগজ। হালে ভার্চুয়াল জগৎ দিয়ে যাচ্ছে একই ধারার হুঁশিয়ারি। বই, ই-বুকের দ্বৈরথ নয়, আমরা বরং গণমাধ্যম দেখি। এখানে দৈনিক, সাপ্তাহিক, পাক্ষিক- ছাপানো যে ধারা তা অনলাইনভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আসার পর থেকেই নতুন প্রতিযোগে পড়েছে। পরিস্থিতি আরো জটিল হয়েছে সমাজমাধ্যম আসায়। অনেক খবর আগেভাগে চলে আসছে সেখানে। যাতে খবরের আরো বেশি খোরাক মেটাতে পারছে আমজনতা। কেননা সেখানে সম্পাদনার বালাই নেই। নেই যাচাইয়ের জন্য সময় দেয়ার কোনো কারবার।
অন্যদিকে মূলধারার গণমাধ্যমগুলো মেনে চলে আপন আপন সম্পাদকীয় নীতি। ভাবে নৈতিকতার কথা। ভাবে লিঙ্গসমকতার কথা। বানান ও সৃজনের বিষয়েও নজর দেয় তারা। সংবাদ-ব্যাকরণের নানান কিছু নিয়েই তাদের কাজ। জনতার জানার সীমানার পরিধিও নির্ধারণ করে দিতে হয়। কারণ হজম যেমন আছে, বদহজম বলেও তো ব্যাপার রয়েছে। একটি গণমাধ্যম সাদা চোখে দেখে এগুলোর অনেক কিছুই আঁচ করা যায় না। এটা অনেক কাঁচের গ্লাসের স্বচ্ছ পানির মতো। উপস্থিতি এমনিতে টের পাওয়া যায় না। যদি কিছু যুক্ত হয়, তবে সবটা পানির রং বদলে যায়। সেটা ভেজাল কিছু হলে তো কথাই নেই। ঠিক তেমনি সম্পাদকীয় নীতির চর্চা স্বাভাবিক একটি বিষয়। তার বিপরীত কিছু হলেই পুরো বিষয়টির ঐকতানে টান পড়ে। চোখে লাগে বড় বেশি। তাই অপসম্পাদকীয় অবশ্য-বর্জনীয় একটি বিষয়।

গ্রহণে যদি গ্রাস হয় আলো, তবে তা ঠেকানোর সাধ্য কতটা থাকে একজন সাংবাদিকের। তাই অনলাইন সমাজমাধ্যমের সুধী বিচারকমণ্ডলী মূলধারায় সম্পাদকীয়র ঘাটতি নিয়ে আপনাদের হাস্যরস, আপনাদের নিন্দা, আপনাদের গালি- হজম করছি নতমুখে


গ্রহণে যদি গ্রাস হয় আলো, তবে তা ঠেকানোর সাধ্য কতটা থাকে একজন সাংবাদিকের। তাই অনলাইন সমাজমাধ্যমের সুধী বিচারকমণ্ডলী মূলধারায় সম্পাদকীয়র ঘাটতি নিয়ে আপনাদের হাস্যরস, আপনাদের নিন্দা, আপনাদের গালি- হজম করছি নতমুখে। দোষ কসুরে দ্বিধা নেই যে- আমাদের পক্ষপাত আছে, আমাদের আপোষ আছে, আছে অযোগ্যতা, আছে আরো আরো বিবিধ দুর্বলতা। গণমাধ্যমে আছি নেশায়, তবু এটা এখন আমাদের পেশা। এখানে টিকে থাকতে হবে আমাদের। আর কিছু পারি না যে আমরা! তাই আমাদের রাষ্ট্র মানতে হবে। কর্তার ইচ্ছায় কর্মেও থাকতে হবে।
আমাদের দিকে তাকাবেন না কাঁচের দুনিয়া থেকে। বরং সমাজমাধ্যমে বিপ্লব করে ফেলুন আপনারা। সব উলট-পালট করে দিন। এনে দিন নতুন দিনের সূর্য। আর আমাদের, আমাদেরই মতো থাকতে দিন। আমরা আমাদের মতোই বাঁচি। আপনাদের অসম্পাদকীয় অবস্থাও গ্রহণীয় নয়। তেমন হতে বলবেন না আমাদের।

লেখক: সাংবাদিক, সাহিত্যিক ও গবেষক




আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


Top